শনিবার, আগস্ট ১৫, ২০২০ | ২২:৫৮
৩১ শ্রাবণ, ১৪২৭ | ২৪ জিলহজ্জ, ১৪৪১
ধর্মের বাণী

২৪ নিউজভিশন ডেস্ক> পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) রোববার। প্রায় দেড় হাজার বছর আগে এ দিনে জন্মগ্রহণ করেন হজরত মুহাম্মদ (সা.)। ঠিক এর ৬৩ বছর পর একই তারিখে ইন্তেকাল করেন তিনি। মুসলিম উম্মাহর কাছে দিনটি একই সঙ্গে আনন্দ ও বেদনার। যথাযোগ্য মর্যাদা ও ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে দিনটি পালন করেন ইসলাম ধর্মাবলম্বীরা।
৫৭০ খ্রিষ্টাব্দে মক্কার কুরাইশ গোত্রের সাধারণ পরিবারে জন্ম নেন রাসুল (সা.)। আরবি পঞ্জিকা অনুযায়ী দিনটি ছিল ১২ রবিউল আউয়াল। ৪০ বছর বয়সে নবুয়ত লাভ করেন। কুসংস্কার, অন্যায়, অবিচার ও দাসত্বের শৃঙ্খল ভাঙতে মুক্তির বার্তা আনেন মানব জাতির জন্য। মহানবী (সা.) দীর্ঘ ২৩ বছর এই বার্তা প্রচার করে ৬৩ বছর বয়সে ইহলোক ত্যাগ করেন।
ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে সারাবিশ্বের মুসলমানদের মতো বাংলাদেশেও ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা পারিবারিক ও সামাজিকভাবে নানা অনুষ্ঠান পালন করে থাকেন। এর মধ্যে রয়েছে নফল নামাজ আদায়, কোরআনখানি, মিলাদ মাহফিল।
ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও জাতীয় সংসদের বিরোধী দলের নেতা বেগম রওশন এরশাদ পৃথক বাণী দিয়েছেন। বাণীতে মহানবীর (সা.) জীবনাদর্শ অনুসরণ করে ভ্রাতৃত্ববোধ ও মানবকল্যাণে ব্রতী হতে সবার প্রতি আহ্বান জানান রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী।
ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে রোববার (১০ নভেম্বর) সরকারি ছুটির দিন। বন্ধ থাকবে সংবাদপত্রও। দেশের সব সরকারি, বেসরকারি টেলিভিশন ও রেডিও চ্যানেল দিনটিতে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবীর (সা.) গুরুত্ব ও তাৎপর্য তুলে ধরে বিশেষ অনুষ্ঠান প্রচার করবে। সংবাদপত্রগুলোও বিশেষ নিবন্ধ প্রকাশ করেছে।
ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) যথাযথ মর্যাদায় পালনে বিভিন্ন ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দল এবং বিভিন্ন সামাজিক, ধর্মীয় সংগঠন ও প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। এসব কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- আলোচনা, মিলাদ, দোয়া মাহফিল প্রভৃতি। ইসলামিক ফাউন্ডেশন পক্ষব্যাপী অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করেছে ঈদে মিলাদুন্নবী উপলক্ষে।
রোববার বাদ মাগরিব বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে মাহফিলের মাধ্যমে মিলাদুন্নবীর (সা.) অনুষ্ঠানমালা উদ্বোধন করা হবে। ২৩ নভেম্বর পর্যন্ত প্রতিদিন বাদ মাগরিব বায়তুল মোকাররমের পূর্ব সাহানে ওয়াজ মাহফিল করা হবে।
ঈদে মিলাদুন্নবী উপলক্ষে মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করবে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি। বাদ আসর মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে জাতীয় প্রেসক্লাবে। প্রতি বছর মতো এবার আশেকানে মাইজভাণ্ডারি জশনে জুলুশের আয়োজন করছে। আনজুমানে রহমানিয়া মইনীয়া মাইজভাণ্ডারিসহ বিভিন্ন ধর্মীয় সংগঠনও শোভাযাত্রার আয়োজন করেছে।

২৪ নিউজভিশন ডেস্ক> লোভ-লালসা, হিংসা-বিদ্বেষসহ মনের পশুকে পরাভূত করার বাণী নিয়ে আবারও এসেছে কোরবানির ঈদ। সোমবার (১১ আগস্ট) পবিত্র ঈদুল আজহা। ঈদের আনন্দে মাতবে সারাদেশ। তবে উৎসবের বাতাবরণে ভয় জাগাচ্ছে সারাদেশে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়া ডেঙ্গু। রয়েছে বন্যার ক্ষত ও নতুন করে বন্যার পূর্বাভাস নিয়ে উদ্বেগ।
ঈদুল ফিতরের মতো কোরবানির ঈদের তারিখ নিয়ে আনন্দময় অনিশ্চয়তা থাকে না। আট দিন আগেই পশ্চিম আকাশে জিলহজের চাঁদ জানান দিয়েছে কোরবানির বারতা। বাংলাদেশের সামর্থ্যবান মুসলমানরা আল্লাহর পথে পশু কোরবানি করবেন। তবে পশু কোরবানি প্রতীকী। কবি নজরুল বলেছেন, ‘মনের পশুরে করো জবাই/পশুরাও বাঁচে, বাঁচে সবাই।’
সবাই সাধ্যমতো সেরা পশু কোরবানি দেবেন ঈদে। তবে এবার উৎসবের আমেজ ম্লান করে দিয়েছে ডেঙ্গু আতঙ্ক। বেসরকারি হিসাবে শতাধিক মানুষের প্রাণ গেছে এ রোগে। সরকারি হিসাবেই আক্রান্ত হয়েছেন অন্তত ৩০ হাজার মানুষ। বেসরকারি হিসাবে এই সংখ্যা লক্ষাধিক। ডেঙ্গুতে স্বজনহারা মানুষের ঘরে আসবে না ঈদের আনন্দ। উত্তরাঞ্চলে ভয়াবহ বন্যায় অনেক মানুষের ঈদ মাটি হয়ে গেছে। আবার রাজধানী ঢাকা থেকে যারা নিজ নিজ এলাকায় গেছেন, তাদের ঈদের খুশি ম্লান করেছে মহাসড়কে দীর্ঘ যানজটসহ যাত্রাপথে নানা ভোগান্তি।
তবু ঈদ বলে কথা। বিখ্যাত শোলাকিয়া ঈদগাহের খতিব মাওলানা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ বলেছেন, ঈদ মানে খুশি। পাশাপাশি কোরবানির ঈদ ত্যাগেরও। বন্যা ও ডেঙ্গুতে যাদের হারিয়েছি, তাদের জন্য দোয়া করতে হবে। ঈদের খুশিতে তাদের যেন ভুলে না যাই।
পবিত্র কোরআনের বর্ণনানুযায়ী, চার হাজার বছর আগে আল্লাহর নির্দেশে হজরত ইব্রাহিম (আ.) তার সবচেয়ে প্রিয় নিজ সন্তান হজরত ইসমাইলকে (আ.) কোরবানি করার উদ্যোগ নেন। তবে আল্লাহর কুদরতে হজরত ইসমাইলের (আ.) পরিবর্তে একটি দুম্বা কোরবানি হয়। হজরত ইব্রাহিমের (আ.) এই ত্যাগের দৃষ্টান্ত স্মরণ করে প্রতিবছর মুসলমানরা কোরবানি করেন। তবে আল্লাহর পথে ত্যাগই ঈদুল আজহার প্রধান শিক্ষা। পশু জবাই করে তা বিলিয়ে দেওয়া দান নয়, ত্যাগ। কবি নজরুল বলেছেন, ‘চাহি নাকো দুম্বা উট, কতটুকু দান? ও দান ঝুট। চাই কোরবানি, চাই না দান।’
সামর্থ্যবানরা নিজেদের নামে, প্রিয়জনের নামে পশু কোরবানি দিয়ে আল্লাহর সন্তুষ্টি আদায়ে সচেষ্ট হবেন। যাদের সামর্থ্য নেই তারাও বাদ যাবেন না ঈদের আনন্দ থেকে। কোরবানির মাংসের তিন ভাগের এক ভাগ দরিদ্রদের মধ্যে বিতরণ করার বিধান রয়েছে ইসলামে। জিলহজ মাসের ১০ তারিখ পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপিত হলেও পরের দু’দিন অর্থাৎ ১১ ও ১২ তারিখেও পশু কোরবানি দেওয়া যায়। সেই হিসাবে আগামী মঙ্গল ও বুধবারও কোরবানি করা যাবে।
পছন্দের পশু কোরবানি করতে সবার এখন ‘গরুখোঁজা’ দশা। সামর্থ্যের সর্বোচ্চ দিয়ে সেরা গরু, ছাগল কেনার জন্য ছুটছেন হাট থেকে হাটে। কয়েক বছর ধরে অনলাইনেও বিক্রি হচ্ছে কোরবানির পশু। তাই পশুর খোঁজে কেউ কেউ চোখ রাখছেন কম্পিউটার ও স্মার্টফোনে। সংখ্যায় বেশি না হলেও বাজারে রয়েছে দুম্বা ও উট। কেউ কেউ মরুভূমির প্রাণী উটও কোরবানি করবেন।
ঈদ করতে পথের ভোগান্তি মাথায় নিয়ে কোটি মানুষ শহর, কর্মস্থল ছেড়ে গিয়েছেন কিংবা যাচ্ছেন প্রিয়জনের কাছে। রোববার থেকে শুরু হয়েছে ঈদের ছুটি। তবে গত বৃহস্পতিবার শেষ কর্মদিবস থেকেই পুরোদমে শুরু হয়েছে ঈদযাত্রা। মহাসড়কে যানজট, ফেরিতে দীর্ঘ লাইন, ট্রেনে বিলম্ব- সব উপেক্ষা করে ‘পথের ক্লান্তি ভুলে’ স্বজনের কাছে ফিরছেন মানুষ।
সোমবার সকালে পরিষ্কারর অথবা নতুন পোশাক পরে সব বয়সী মানুষ শরিক হবেন ঈদের জামাতে। এক কাতারে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে দাঁড়িয়ে আদায় করবেন ঈদের নামাজ। ভুলে যাবেন সব ভেদাভেদ। নামাজের জন্য প্রস্তুত জাতীয় ঈদগাহ ময়দানসহ অন্যান্য ময়দান ও মসজিদগুলো।
রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণীতে দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। বাণীতে রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘কোরবানি আমাদের মাঝে আত্মদান ও আত্মত্যাগের মানসিকতা সঞ্চারিত করে। কোরবানির মর্ম অনুধাবন করে সমাজে শান্তি ও কল্যাণের পথ রচনা করতে আমাদের সংযম ও ত্যাগের মানসিকতায় উজ্জীবিত হতে হবে। ত্যাগের শিক্ষা আমাদের ব্যক্তি ও সমাজ জীবনে প্রতিফলিত হলেই প্রতিষ্ঠিত হবে শান্তি ও সৌহার্দ্য।’
প্রধানমন্ত্রী তার বাণীতে বলেন, ‘শান্তি, সহমর্মিতা, ত্যাগ ও ভ্রাতৃত্ববোধের শিক্ষা দেয় ঈদুল আজহা। তাই আসুন, আমরা সকলে পবিত্র ঈদুল আজহার মর্মবাণী অন্তরে ধারণ করে নিজ নিজ অবস্থান থেকে জনকল্যাণমুখী কাজে অংশ নিয়ে বৈষম্যহীন, সুখী, সমৃদ্ধ ও শান্তিপূর্ণ বাংলাদেশ গড়ে তুলি।’
দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদেরসহ বিভিন্ন দলের রাজনীতিকরা।
কোরবানির তাৎপর্য ও গুরুত্ব তুলে ধরে বিশেষ নিবন্ধ প্রকাশ করেছে সংবাদপত্রগুলো। সোমবার থেকে তিন দিন বন্ধ থাকবে সংবাদপত্র। সরকারি-বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল ঈদ উপলক্ষে সাত দিনের বিশেষ বিনোদন অনুষ্ঠান প্রচার করবে। ঈদ উপলক্ষে রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলোকে সরকারি উদ্যোগে বর্ণিল সাজে সাজানো হয়েছে। শিশুদের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে বিনোদনকেন্দ্রগুলো।

২৪ নিউজভিশন ডেস্ক> বাংলাদেশের আকাশে জিলহজ মাসের চাঁদ দেখা গেছে। ফলে শনিবার ৩ আগস্ট জিলহজ মাস শুরু হবে। সেই হিসেবে বাংলাদেশে এবারের পবিত্র ঈদুল আজহা উদ্‌যাপিত হবে ১২ আগস্ট সোমবার।
শুক্রবার (২ আগস্ট) চাঁদ দেখা কমিটির বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয় বলে গণমাধ্যমে নিশ্চিত করেছেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. নিজাম উদ্দীন। তিনি বলেন, বায়তুল মোকাররমে ইসলামিক ফাউন্ডেশন সভাকক্ষে শুক্রবার জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়। শুক্রবার বাংলাদেশের আকাশে জিলহজ মাসের চাঁদ দেখা গেছে। সারা দেশ থেকে চাঁদ দেখা সংক্রান্ত তথ্য বিশ্লেষণ করে কমিটি ১২ আগস্ট পবিত্র ঈদুল আজহা উদ্‌যাপনের সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছে।
১০ আগস্ট (শনিবার) পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হবে। পরদিন ১১ আগস্ট (রোববার) সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে উদযাপিত হবে পবিত্র ঈদুল আজহা।

অনলাইন ডেস্ক> সৌদি আরবে মঙ্গলবার (৪ জুন) পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপন করা হবে। দেশটির সুপ্রিম কোর্ট সোমবার (৩ জুন) এ ঘোষণা দিয়েছেন।
আরব নিউজের খবরে বলা হয়, সৌদি আরবের বিভিন্ন স্থানে সোমবার পবিত্র শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা গেছে। তাই মঙ্গলবার দেশজুড়ে পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপন করা হবে।
সৌদি আরবে গত ৬ মে পবিত্র রমজান মাস শুরু হয়। শুধু সৌদি আরব নয় বিশ্বের আরও বেশ কিছু দেশ মঙ্গলবার পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপন করার ঘোষণা দিয়েছে। সংযুক্ত আরব আমিরাত (ইউএই), কুয়েতসহ উপসাগরীয় দেশগুলো মঙ্গলবার ঈদুল ফিতর উদযাপন করবে।

২৪ নিউজভিশন ডেস্ক> যথাযোগ্য ধর্মীয় মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্য পরিবেশে শনিবার দিবাগত রাতে পবিত্র লাইলাতুল কদর বা শবে কদর পালিত হবে। এ উপলক্ষে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে শনিবার বাদ জোহর বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে ওয়াজ ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে।
মুসলমানের কাছে শবে কদরের রাত হাজার রাতের চেয়ে পুণ্যময়। মহান আল্লাহ পবিত্র কোরাআনে ঘোষণা করেছেন, ‘হাজার রাতের চেয়েও উত্তম’।
পবিত্র শবে কদর সমগ্র মানবজাতির জন্য অত্যন্ত বরকতময় ও পুণ্যময় রজনী। পবিত্র শবে কদরের রাতে ধর্মপ্রাণ মুসলমানেরা আল্লাহর নৈকট্য ও রহমত লাভের আশায় ইবাদত বন্দেগি করবেন।
পবিত্র রমজান মাসে লাইলাতুল কদরে পবিত্র কোরআন নাজিল হয়। তাই আল্লাহর প্রতি শুকরিয়া আদায়ে মুসলমানেরা এ রাতে ইবাদত বন্দেগিতে মশগুল থাকেন। এ রাতে মুসলমানরা নফল নামাজ, পবিত্র কোরআন তিলাওয়াত, জিকির-আসকার, দোয়া, মিলাদ ও মোনাজাত করবেন।
পবিত্র শবে কদর উপলক্ষে রোববার সরকারি ছুটি। এ উপলক্ষে জাতীয় বায়তুল মোকাররম মসজিদসহ দেশের সব মসজিদে রাতব্যাপী ওয়াজ মাহফিল, ধর্মীয় বয়ান ও মোনাজাতের আয়োজন করা হবে।
ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, শবে কদর উপলক্ষে শনিবার বাদ জোহর বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে ‘পবিত্র লাইলাতুল কদরের গুরুত্ব ও তাৎপর্য’ শীর্ষক ওয়াজ ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। ওয়াজ পেশ করবেন মিরপুর বায়তুল মামুর জামে মসজিদের খতিব মুফতি আবদুল মুকিত আযহারী।

২৪ নিউজভিশন ডেস্ক> যথযথ ধর্মীয় মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে সারা দেশে পালিত হচ্ছে পবিত্র শবেবরাত।
ফার্সি শব্দগুচ্ছ ‘শবেবরাত’-এর অর্থ ভাগ্যরজনী। শাবান মাসের ১৪ তারিখ রাতটি মুসলিম উম্মাহ পালন করে মহিমান্বিত ভাগ্যরজনী হিসেবে। ইসলাম ধর্মাবলম্বীরা বিশ্বাস করেন, এ রাতেই পরবর্তী বছরের জন্য ভাগ্য নির্ধারণ করা হয়।
জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররসহ বিভিন্ন মসজিদে রোববার (২১ এপ্রিল) বিকেল থেকেই জমায়েত হতে শুরু করেছেন মুসল্লিরা। সন্ধ্যার পর শুরু হয়েছে বিশেষ ওয়াজ মাহফিল। রাতব্যাপী অনুষ্ঠানমালার আয়োজন হয়েছে মসজিদগুলোতে।
এ রাতে ইবাদত-বন্দেগি, জিকির-আজকার, মিলাদ-মাহফিল, নফল নামাজ আদায় ও কোরআন তিলাওয়াতে মশগুল থাকবেন মুসল্লিরা; মৃত স্বজনের কবর জিয়ারত করবেন তাঁরা।
বায়তুল মোকাররমে রাতে প্রথমে ‘ইবাদত ও দোয়ার গুরুত্ব’ শীর্ষক ওয়াজ মাহফিলে বয়ান করবেন মসজিদের পেশ ইমাম হাফেজ মাওলানা মুহাম্মদ মহিউদ্দিন কাসেম। এরপর ‘শবে বরাত ও রমজানের তাৎপর্য’ শিরোনামে ওয়াজ পেশ করবেন মসজিদের পেশ ইমাম মুফতি মাওলানা এহসানুল হক জিলানী। পরে ‘তাহাজ্জুদের গুরুত্ব ও ফজিলত’ শিরোনামে ওয়াজ করবেন মসজিদের সিনিয়র পেশ ইমাম হাফেজ মাওলানা মুহাম্মদ মিজানুর রহমান।
শেষে ফজরের নামাজের পর হওয়া আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করবেন বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের সিনিয়র পেশ ইমাম হাফেজ মাওলানা মুহাম্মদ মিজানুর রহমান।
শবেবরাতের আরবি লাইলাতুল বরাত। ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের বিশ্বাস- শবেবরাতের রাতে নির্ধারণ হয় পরবর্তী এক বছরের হায়াত, রিজিক, আমল। এ রাতে রয়েছে পাপ মোচনের সুযোগ।
শবেবরাত মুসলমানের কাছে রমজানের বার্তা বয়ে আনে। রমজানের প্রস্তুতি হিসেবে অনেকে রোববার ও সোমবার রোজা রাখবেন। শবেবরাতে সন্ধ্যায় প্রতিবেশী ও দুস্থদের মধ্যে ইফতার এবং হালুয়া-রুটি বিতরণের রেওয়াজ রয়েছে।
শবেবরাত উপলক্ষে সোমবার সরকারি ছুটি। সংবাদপত্র প্রকাশ হবে না। শবেবরাতের পবিত্রতা রক্ষায় রাজধানীতে বিস্ফোরক দ্রব্য, আতশবাজি, পটকা ও অন্যান্য ক্ষতিকারক দ্রব্য বহন এবং ফাটানো নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)।
গত ৬ এপ্রিল জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভায় জানানো হয়, সেদিন বাংলাদেশের আকাশে শাবান মাসের চাঁদ দেখা যায়নি। তবে দু’দিন পর মজলিশু রুইয়াতিল হিলাল নামে একটি সংগঠন ১৭ প্রত্যক্ষদর্শীর বরাতে দাবি করে, ৬ এপ্রিলই চাঁদ দেখা গেছে। বিষয়টি হাইকোর্ট পর্যন্ত গড়ায়। আদালত এতে হস্তক্ষেপ না করার সিদ্ধান্ত জানান। ধর্ম মন্ত্রণালয় গত মঙ্গলবার জানিয়ে দেয়, ২১ এপ্রিল রাতেই পবিত্র শবেবরাত পালিত হবে।

অনলাইন ডেস্ক> ২১ এপ্রিল সারা দেশে পবিত্র শবে বরাত পালিত হবে। শনিবার (৬ এপ্রিল) সন্ধ্যায় ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বায়তুল মোকাররম সভাকক্ষে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির এক সভায় এ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।
ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ও জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভাপতি শেখ মো. আবদুল্লাহর সভাপতিত্বে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভা শেষে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়। এতে জানানো হয়, বাংলাদেশের আকাশে শনিবার কোথাও ১৪৪০ হিজরি সনের পবিত্র শাবান মাসের চাঁদ দেখা যায়নি। ফলে ৭ এপ্রিল রোববার পবিত্র রজব মাস ৩০ দিন পূর্ণ হবে।
সভায় ধর্মসচিব মো. আনিছুর রহমান, তথ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোহা. আজহারুল হক, প্রধান তথ্য কর্মকর্তা মো. জাকির হোসেন, বাংলাদেশ ওয়াক্ফ প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলাম, ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মু. আ. হামিদ জমাদ্দার, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের ভারপ্রাপ্ত মহাপরিচালক কাজী নূরুল ইসলাম, সরকারি মাদ্রাসা-ই-আলিয়ার প্রিন্সিপাল মো. আলমগীর রহমান, বাংলাদেশ মহাকাশ গবেষণা ও দূর অনুধাবন প্রতিষ্ঠানের পিএসও শাহ মো. মিজানুর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সভায় ১৪৪০ হিজরি সনের পবিত্র শাবান মাসের চাঁদ দেখা সম্পর্কে সব জেলা প্রশাসন, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের প্রধান কার্যালয়, বিভাগীয় ও জেলা কার্যালয়সমূহ, বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তরের সব কার্যালয় এবং মহাকাশ গবেষণা ও দূর অনুধাবন প্রতিষ্ঠান থেকে প্রাপ্ত তথ্য পর্যালোচনা করে সর্বসম্মতভাবে এই সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

২৪ নিউজভিশন.কম> বাংলাদেশের আকাশে বৃহস্পতিবার পবিত্র রজব মাসের চাঁদ দেখা যায়নি। শুক্রবার ৩০ দিনে পূর্ণ হবে জমাদিউস সানি মাস। শনিবার থেকে শুরু হবে রজব মাস গননা। এ হিসেবে আগামী ৩ এপ্রিল (বুধবার) ২৬ রজব দিবাগত রাতে পবিত্র লাইলাতুল মিরাজ পালিত হবে।
বৃহস্পতিবার (৭ মার্চ) সন্ধ্যায় ইসলামিক ফাউন্ডেশন বায়তুল মুকাররম সভাকক্ষে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন ধর্মপ্রতিমন্ত্রী শেখ আবদুল্লাহ।
তিনি বলেন, বাংলাদেশের আকাশে ১৪৪০ হিজরির রজব মাসের চাঁদ দেখা যায়নি।
ইসলাম ধর্মের অনুসারীরা বিশ্বাস করে ২৬ রজব রাতে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) বেহেশতি যানে চড়ে উর্দ্ধাকাশে গমণ করেন। আল্লাহর সঙ্গে এক ধঁনুক দূরত্ব থেকে কথা বলেন। মুসলমানদের পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ মেরাজের রাতে ফরজ করা হয়। সারা বিশ্বের মুসলমানরা দিনটি ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পালন করেন।

২৪ নিউজভিশন.কম> দেশের কল্যাণ, দুনিয়া ও আখিরাতের শান্তি কামনা করে আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শনিবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব শেষ হলো। তাবলিগ জামাত আয়োজিত ৫৪তম বিশ্ব ইজতেমার এ পর্ব পরিচালনা করেন মাওলানা জোবায়েরপন্থীরা।
আখেরি মোনাজাতে আত্মশুদ্ধি ও নিজ নিজ গুনাহ মাফের পাশাপাশি সব বালা-মুসিবত থেকে দুনিয়ার হেফাজতের জন্য দুই হাত তুলে মহান আল্লাহর দরবারে রহমত প্রার্থনা করা হয়। এ সময় ‘আমিন, আল্লাহুম্মা আমিন’ ধ্বনিতে মুখরিত ছিল ময়দান প্রাঙ্গণ। মোনাজাতে লাখ লাখ মুসল্লি আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের আকুতি জানান। মোনাজাত পরিচালনা করেন বিশ্ব তাবলিগ জামাতের শীর্ষস্থানীয় মুরব্বি বাংলাদেশের কাকরাইল মসজিদের ইমাম হজরত মাওলানা মুহাম্মদ জোবায়ের। তিনি আরবি ও বাংলা ভাষায় মোনাজাত পরিচালনা করেন।
সকালে দিকনির্দেশনামূলক বয়ানের পর লাখ লাখ মানুষের প্রতীক্ষার অবসান ঘটে সকাল ১০টা ৪০ মিনিটে। জনসমুদ্রে হঠাৎ নেমে আসে পিনপতন নীরবতা। যে যেখানে ছিলেন, সেখানে দাঁড়িয়ে কিংবা বসে হাত তোলেন আল্লাহর দরবারে। কান্নায় বুক ভাসান তাঁরা। ২৪ মিনিটব্যাপী মোনাজাতে মাওলানা জোবায়ের প্রথম ১৩ মিনিট আরবিতে এবং শেষ ১১ মিনিট বাংলায় দোয়া করেন। মুঠোফোন ও টেলিভিশনে সরাসরি প্রচারের সুবাদে দেশ-বিদেশের আরও লাখ লাখ মানুষ একসঙ্গে হাত তোলেন আল্লাহর দরবারে। অনেকে বিমানবন্দর গোল চত্বর ও উত্তরা থেকে আখেরি মোনাজাতে অংশ নেন। আখেরি মোনাজাত উপলক্ষে টঙ্গী, গাজীপুর, উত্তরাসহ চারপাশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, কলকারখানা, মার্কেট, বিপণিবিতান বন্ধ ছিল।
শনিবার মধ্যরাতের আগে মাওলানা জোবায়ের অনুসারী মুসল্লিরা ইজতেমা মাঠ ত্যাগ করবেন। আর মাঠ বুঝিয়ে দেওয়া হবে প্রশাসনের কাছে। প্রশাসন মাওলানা সা’দ অনুসারীদের কাছে ময়দান বুঝিয়ে দেবেন। রোববার বাদ ফজর থেকে মাওলানা সা’দ অনুসারীদের পরিচালনায় বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় অংশ শুরু হবে। সোমবার আখেরি মোনাজাতের মাধ্যমে শেষ হবে এ বছরের বিশ্ব ইজতেমা।

২৪ নিউজভিশন.কম> এবারের বিশ্ব ইজতেমা হবে এক পর্বে। বিশ্ব ইজতেমা নিয়ে বিবাদমান দুই পক্ষ মিলে আগামী ১৫ থেকে ১৭ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ইজতেমা আয়োজন করবে বলে জানিয়েছেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ।
বৃহস্পতিবার (২৪ জানুয়ারি) বিকেলে সচিবালয়ে এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে তিনি এ কথা বলেন।
এর আগে বুধবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল জানিয়েছিলেন, ফেব্রুয়ারি মাসে বিশ্ব ইজতেমা আয়োজনে মাওলানা জুবায়ের আহমেদ ও দিল্লির মাওলানা মোহাম্মদ সাদ কান্ধলভীর অনুসারী দুই পক্ষ সম্মত হয়েছে। তখন দুই পক্ষ একসঙ্গেই ইজতেমা আয়োজনে সম্মত হয়।
বৃহস্পতিবার এই দুই পক্ষের প্রতিনিধিদের সঙ্গে ফের বৈঠকে বসেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ। পরে এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে তিনি বলেন, আগামী ১৫ থেকে ১৭ ফেব্রুয়ারি এক পর্বে বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠিত হবে।
এ বছর জানুয়ারিতে ইজতেমা অনুষ্ঠানের কথা থাকলেও মাওলানা জুবায়ের ও দিল্লির মাওলানা সাদের অনুসারীদের বিরোধের মুখে গত বছরের ১৫ নভেম্বর ইজতেমা স্থগিতের ঘোষণা দেয় সরকার। গত ১ ডিসেম্বর তাবলিগ জামাতের দুই পক্ষের দফায় দফায় সংঘর্ষে টঙ্গীতে প্রাণহানির ঘটনাও ঘটে। এই দুই পক্ষের মধ্যে চরম বিরোধপূর্ণ অবস্থানের কারণে ইজতেমা আয়োজনে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছিল।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান সাংবাদিকদের বলেছিলেন, তাবলিগ জামাতের দুই পক্ষের দ্বন্দ্ব মিটে গেছে। ফেব্রুয়ারিতে তাঁরা একসঙ্গে ইজতেমা আয়োজনে সম্মত হয়েছেন। মাওলানা সাদ এবার ইজতেমায় যোগ দেবেন না। বৈঠকে সে রকম সিদ্ধান্ত হয়েছে।
Select Language