যে আচরণে দাম্পত্য মধুর হয়…

যে আচরণে দাম্পত্য মধুর হয়…

২৪ নিউজভিশন.কম>
বর-বউয়ের সুন্দর বোঝাপড়া দাম্পত্যে সুখ আনে। কিন্তু এখনকার ব্যস্ত জীবনে সময়ের যেন বড় অভাব! এখনকার আধুনিক প্রযুক্তি, স্মার্টফোন, সোশ্যাল মিডিয়া অনেকের সময় কেড়ে নিচ্ছে। সম্পর্ক মধুর করতে সঙ্গীকে সময় দিতে হবে। পাশে সরিয়ে রাখতে হবে গ্যাজেটস। সঙ্গীকে বোঝাতে হবে রোমান্টিক মনের ভাবনা। জয় করে নিতে হবে সঙ্গীর মন। দুজন দুজনকে ভালোবাসেন—এ কথা দুজনই মনে মনে জানেন।
ভালোবাসা দেখানো আরেক জিনিস। সামনাসামনি সামান্য প্রশংসা বা কৃতজ্ঞতাবোধ সম্পর্ক অন্য উচ্চতায় নিয়ে যেতে পারে। দুজন-দুজনের আরও আপন হতে পারেন কয়েকটি কথায়। জেনে নিন কথাগুলো:
প্লিজ ও থ্যাংক ইউ: দুজন দুজনের নিশ্চয়ই নানা কাজে সাহায্য করেন। কখনো কি থ্যাংক ইউ বলে দেখেছেন সঙ্গীকে? অনেক সময় পাশাপাশি থেকেও গুরুত্ব দিয়ে কথা বলা হয়ে ওঠে না। কথার সঙ্গে ‘প্লিজ’ জুড়ে দিলে সঙ্গীর কাছে সে কথা গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠতে পারে। প্লিজের সঙ্গে যদি সঙ্গীকে একটা ‘থ্যাংক ইউ’ যোগ হয়, সম্পর্ক আরও মধুর হবে নিঃসন্দেহে।
গুরুত্ব দিয়ে কথা শুনুন: যখন দুজন কথা বলবেন বা কোনো বিষয়ে আলাপ করবেন, গুরুত্ব দিয়ে সঙ্গীর কথা শুনুন। হাতে ফোন বা অন্য কিছু থাকলে সরিয়ে রাখুন। সঙ্গীর জন্য আপনার মনোযোগ হতে পারে গুরুত্বপূর্ণ এক উপহার। সঙ্গী নিশ্চয় অনুভব করবে আপনার গুরুত্বের বিষয়টি। দুজন দুজনকে যখন গুরুত্ব দেন, সম্পর্কের মধ্যে কি ফাঁকফোকর থাকবে?
একটু আলিঙ্গন: সব সময় ফুল উপহার দিয়ে সঙ্গীর মন জোগাতে হবে, এমন কোনো কথা নেই। অনেক সময় খুব সাধারণ এক স্পর্শ কিংবা আলিঙ্গন হতে পারে বড় উপহার। সঙ্গীর জন্য আপনার অনুভূতির সবকিছুই না বলা সামান্য এক আলিঙ্গনে বলা হয়ে যেতে পারে। সম্পর্কের মধ্যে কোনো দূরত্ব থাকলে নিমেষেই তা উধাও হয়ে যেতে পারে। দুজন-দুজনের যখন এত কাছাকাছি, তখন কি আর ভালোবাসা বাড়বে না?

বিবেচনাবোধ:
একটু বিবেচনাবোধ সম্পর্ককে আরও মধুর করে তুলতে পারে। একজন ফোনে কথা বলছে তো টিভির শব্দ একটু কমিয়ে দেওয়া, একজন বাজার করে ফিরল তো একটু সাহায্য করার মতো সংসারের টুকিটাকি কাজে সাহায্য করতে পারেন। টুকটাক সাহায্য করতে গিয়েই দেখবেন মধুর সম্পর্ক ধীরে ধীরে মধুরতম হয়ে যাচ্ছে। যখন কোনো বড় সিদ্ধান্ত নেবেন বিশেষ করে কেনাকাটা, কোথাও গিয়ে খাবার পছন্দ করার মতো বিষয়গুলোতে সঙ্গীর পছন্দকে গুরুত্ব দিন। সব সময় সঙ্গীর জন্য সেরাটা করতে চাইলেও সেটা তার ওপর কতটা প্রভাব ফেলছে সে বিষয়ে খেয়াল রাখুন।